নিরবকে অভিনন্দন জানালেন সুপারস্টার শাকিব খান

গেলো সপ্তাহে মালয়েশিয়ায় মুক্তি পেয়েছে নিরবের ‘বাংলাশিয়া ২.০’ ছবিটি। মুক্তির পর সেখানে দর্শক সাড়াও পেয়েছে বেশ। নেমউই পরিচালিত এই সিনেমাটি মুক্তির পর মালেশিয়া জুড়ে আলোড়ন তৈরি করে। মাত্র এক সপ্তাহেই সিনেমাটি লগ্নিকৃত অর্থ তুলে ফেলে।

শুধু তাই-ই নয়, সেখানকার সবচেয়ে বড় সিনেপ্লেক্স চেইন ‘গোল্ড স্ক্রিন সিনেমাস’-এর টপ লিস্টে প্রথম স্থান দখল করে নেয়। এছাড়াও মালয়েশিয়ান, চাইনিজ দর্শকদের প্রিয়মুখে পরিণত হয়েছেন ঢাকাই সিনেমার নায়ক নিরব। দেশটির নানা ভাষার গণমাধ্যমও তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

ঢালিউড তারকাদের প্রশংসায় ভাসছে নিরব। তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ঢাকাই ছবির সুপারস্টার শাকিব খানও।  বিদেশের মাটিতে দেশি কোনো শিল্পীর এমন সাফল্যে উচ্ছ্বসিত শাকিব বলেন, ‘আমাদের দেশের একজন নায়কের অভিনয়ে মুগ্ধ অন্য দেশের নাগরিকেরা। এটা আমাদের জন্য একটা বড় প্রাপ্তি। নিরবের এখন উচিত হবে নিজের অভিনয়, ক্যারিয়ারের প্রতি আরও মনযোগী হওয়া।’  বাংলা সিনেমার সংকট মুহূর্তে নিরব নতুন আশা জাগিয়েছে বলেও মন্তব্য করে শাকিব।  শাকিব খানের মুখে এমন প্রশংসাসূচক বক্তব্য শুনে খুশি নিরব বলেন, ‘শাকিব ভাইয়ের মতো সুপারস্টারের কাছ থেকে এমন প্রশংসা শুনে অনেক ভালো লাগছে। আমার ছবির সাফল্যে তিনি অনেক খুশি হয়েছেন।’

https://i2.wp.com/media.malaymail.com/resize_cache/uploads/articles/2019/2019-03/nirhoss0503-seo.jpg?resize=640%2C336&ssl=1

শাকিব খান বলেন, ‘অন্যদেশের একটি ছবিতে অভিনয় করে আমাদের দেশের একজন নায়ক সফল হয়েছেন। এটা আমাদের জন্য একটা প্রাপ্তি। এটা আমাদের ইন্ডাস্ট্রি এবং সবার জন্যই অনেক বড় অর্জন। সিনেমার এই ক্রান্তিলগ্নে নিরব নতুন আশা জাগিয়েছে। তার উচিত নিজের অভিনয়, ক্যারিয়ারের প্রতি আরও মনযোগী হওয়া।’

শাকিব খানের কাছ থেকে এমন অভিবাদন পেয়ে উচ্ছ্বসিত নিরব বলেন, ‘শাকিব ভাই আমাদের গর্ব। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে সিনেমার হাল ধরে রেখেছেন। তার মতো বড় একজন তারকা যখন ফোন করে শুভেচ্ছা জানান, তখন সত্যিই অনেক ভালো লাগে।’

উল্লেখ্য, ‘বাংলাশিয়া ২.০’ সিনেমায় পাঁচ বছর আগে অভিনয় করেছিলেন নিরব। এ সিনেমায় নিরবের বিপরীতে অভিনয় করেছেন সিঙ্গাপুরের তারকা আতিকা সুহাইমি। ছবিটির শুটিং টানা ৪২ দিন করে শেষ হয়। এরপর ছবিটির ট্রেলারও প্রকাশিত হয়। জাপানের একটি চলচ্চিত্র উৎসবেও ছবিটি প্রদর্শিত হয়। এটি নির্মাতা নেমউই’র পঞ্চম সিনেমা। এর আগে তিনি যেই চারটি সিনেমা নির্মাণ করেছিলেন, সেগুলোর তুলনায় এই সিনেমাটি বেশি সাফল্য পেয়েছে।

আরও খবর