চিকিৎসা সহায়তা নিয়ে বিতর্কে আহমেদ শরীফ

বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় অভিনেতা আহমেদ শরীফ নিজের ও তার স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে গত ১৮ এপ্রিল ৩৫ লাখ টাকা চিকিৎসা সহায়তা পেয়েছেন। এরপর থেকেই সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শুরু হয়েছে বিতর্ক। কারণ এই অভিনেতা তার ঠিক কোন অসুখের জন্য এই সহায়তা পেয়েছেন তা এখনো জানা যায়নি।

১৮ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে শেখ হাসিনার কাছ থেকে নিজেই অনুদানের চেক গ্রহণ করেন এই চলচ্চিত্র অভিনেতা। এই অর্থ সহায়তা পেয়ে নিজের ও পরিবারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন তিনি।

পূর্বে প্রকাশিত খবরঃ  আহমেদ শরীফকে প্রধানমন্ত্রী ৩৫ লাখ টাকা অনুদান দিলেন

এদিকে চিকিৎসা সহায়তা গ্রহণ করার পর থেকেই আহমেদ শরীফের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। সেই সঙ্গে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি তার নেতিবাচক ধারণার কথাও উঠে এসেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আহমেদ শরীফের বড় ভাই বিজিএমই’র সাবেক সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। ডেনিম গ্রুপের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর হিসেবে আছেন আহমেদ শরীফ। উত্তরায় তার হাউজিং ব্যবসাও আছে।

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ২২ এপ্রিল, সোমবার বিকেলে আহমেদ শরীফের ব্যক্তিগত নম্বরে কল করা হলে সেটি রিসিভ হয়নি। এরপর তাকে মেসেজ পাঠানো হলেও তার কোনো রিপলাই আসেনি।

বাংলা চলচ্চিত্রে খল চরিত্রে অভিনয় করে জনপ্রিয় হন আহমেদ শরীফ। তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাবেক সভাপতি।

সুভাষ দত্তের ‘অরুণোদয়ের অগ্নিসাক্ষী’তে নায়ক হিসেবে আহমেদ শরীফের চলচ্চিত্র যাত্রা শুরু হলেও পরে খলনায়ক হিসেবে ‘বন্দুক’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেই নজর কাড়েন তিনি।

আট শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন আহমেদ শরীফ; যার অধিকাংশেই খলনায়কের চরিত্রে ছিলেন তিনি।

রাজনৈতিক আদর্শে বিএনপি মতাদর্শের আহমেদ শরীফ। একসময় দলটির সাংস্কৃতিক ফ্রন্ট জাসাসের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি।

আরও খবর