ভূত হয়ে আসছেন জয়া

কলকাতায় নতুন একটি ভৌতিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন জয়া আহসান।

সৌকর্য ঘোষালের পরিচালনায় নতুন এ চলচ্চিত্রের নাম ‘ভূতপরী’। ডানাওয়ালা এক ভূতের সাজে তারই প্রথম পোস্টার প্রকাশিত হয়েছে সম্প্রতি, যদিও শুটিং শুরু হতে যাচ্ছে আগামী ২৬ অগাস্ট থেকে।

বাংলাদেশের পর্দায় জয়া প্রযোজিত প্রথম ছবি ‘দেবী’ ভৌতিক ঘরানার। এ ঘরানার ছবিতে এটিই ছিল তার প্রথম অভিনয়, এবার দ্বিতীয় সুযোগটি এলো কলকাতায়।

কলকাতা থেকে জয়া গ্লিটজকে বলেন, “ভুতপরী’র চরিত্রটি আমি করিনি এর আগে। চরিত্রটি আগে করিনি বলতে যা বোঝায়, আসলে তা হলো এখানে একটি ভূতের আত্মকাহিনী দেখানো হয়েছে। কিন্তু খুবই মডার্ন অ্যাপ্রোচ। দুটো সময়কে লিংক করানো হয়েছে।”

“ডিরেক্টর খুব ভালো, সৌকর্য ঘোষাল। এর আগে তিনি বিভিন্ন ফেস্টিভাল এবং সাধারণ মানুষের কাছে তার ছবি বেশ নাম করেছে। ‘পেন্ডুলাম’, ‘রেনবো জেলি’, ‘রক্তরহস্য’ নামে কিছু ছবি নির্মাণ করেছেন। খুব ভালো ডিরেক্টর, টিম খুব ভালো।”

জয়া আহসানের বিপরীতে চলচ্চিত্রটিতে অভিনয় করেছেন ঋত্বিক চক্রবর্তী। তবে চলচ্চিত্রের কাহিনী গড়ে উঠেছে জয়ার চরিত্রটিকে কেন্দ্র করেই। আর এতে জয়ার সঙ্গী হয়েছেন আরও এক শিশু শিল্পী। তিনি হলেন বিশ্বান্তক মুখোপাধ্যায়।

পরিচালক সৌকর্য ঘোষাল বলেন, “এটা একটা হরর ফ্যান্টাসি ছবি। এখানে জয়া ভূত হয়েছেন। ভূতের গল্প হলেও একটা ফ্যান্টাসির জায়গা আছে। শীর্ষেন্দুর ভূত, লীলা মজুমদারের ভূতের ঘরাণার স্বাদও মিলবে। ভূতটার এখানে সীমাবদ্ধতা আছে। সে কোনও কিছু ধরতে পারে না। এজন্য তার কারও সাহায্য লাগে। আবার মানুষের মতোই তার রাগ হয়, হিংসা হয়, সে সেন্টিমেন্টালও হয়ে পড়ে মাঝে মাঝে।”

চলচ্চিত্রটিতে দেখা যাবে, সমনাম্বুলিজম-এ আক্রান্ত এক শিশু এক ভূতের মুখোমুখি হয়, যে সত্তর বছর আগে মারা গেছে। শিশু আর মহিলা ভূত আবিষ্কার করে যে, তারা একই রকম স্বপ্ন দেখে। ১৯৪৭ সালে মারা যাওয়া মহিলার ভূত ২০১৯ সালে এই শিশু ছেলেটির দেখা পায়। তার সাহায্যেই ভূত জানতে পারে, কেমন করে তার মৃত্যু হয়েছিল। এটি স্বাভাবিক মৃত্যু ছিল না, ছিল খুন।

আরও খবর